ক্ষুদ্র চিন্তা


মানুষের মৌলিক চাহিদা ৬টি। খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ও নিরাপত্তা। বস্ত্র অর্থাৎ টেক্সটাইল মানুষের দ্বিতীয় মৌলিক চাহিদা। এই টেক্সটাইল শিল্পকে টিকিয়ে রেখেছেন দেশের উদ্দ্যমী কিছু মানুষ যারা প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে এর সাথে জড়িত । এদেশের বৈদেশিক মুদ্রার ৮৩ ভাগই আসে এই খাত থেকে। এই সেক্টরের জন্যই " মেইড ইন বাংলাদেশ " হিসেবে বিশ্বের বড় বড় সব দেশে রয়েছে এর যথেষ্ট সুনাম । আর এই সম্পূর্ণ কাজ যে মানুষগুলোর অক্লান্ত পরিশ্রম, মেধা আর মনন দ্বারা হয় তারা হলো টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার বা বস্ত্র প্রকৌশলী। কিন্তু বেশির ভাগ মানুষই জানে না টেক্সটাইল কি, আর টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারের কাজ ই বা কি। অনেকে তো টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের এর নাম শুনলে তুচ্ছ করে বলেই ফেলে কাপড়ের আবার ইঞ্জিনিয়ারিং। অনেকে তো আবার একে দর্জির সাথে তুলনা করে থাকেন। বস্তুত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং হচ্ছে সম্পূর্ন ম্যানুফ্যাকচারিং বেসড একটি প্রসেস যেখানে একজন ইঞ্জিনিয়ারকে মেশিন সেটআপ থেকে শুরু করে প্রসেস কন্ট্রোল, প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট, গিয়ার মেকানিজম এবং মেইন্টেনেন্স নিয়ে কাজ করতে হয়। একজন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে বলতে পারি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং হল এমন একটি প্রকৌশল বিদ্যা যেখানে তুলা থেকে সুতা (ইয়ার্ন), সুতা থেকে বুনন প্রক্রিয়ায় কাপড়( ফেব্রিক), সেই ফেব্রিক এ রং করা, সবশেষে রং করা ফেব্রিক কে কেটে এবং সেলাই করে প্যাকেজিং এর মাধ্যমে রপ্তানি উপযোগী করে বিশ্বের অন্যান্য দেশে রপ্তানি করা। প্রতিনিয়ত হাজার হাজার টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার নিরলসভাবে কাজ করে চলছে মানুষের এই মৌলিক চাহিদা পূরনের জন্য। এছাড়াও বর্তমানে পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ করতে সাসটেইনেবিলিটি, ইটিপি সিস্টেম, রিসাইক্লিং ইত্যাদি পদ্ধতির অনুসরণ করা হচ্ছে এই সেক্টরে।
বৃষ্টি সাহা
৯ম ব্যাচ 

1 comment:

ক্ষুদ্র চিন্তা

মানুষের মৌলিক চাহিদা ৬টি। খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ও নিরাপত্তা। বস্ত্র অর্থাৎ টেক্সটাইল মানুষের দ্বিতীয় মৌলিক চাহিদা। এই...

Theme images by konradlew. Powered by Blogger.