গল্পটা ক্যাম্পাসের....


Sarstec Campus
Sarstec Pond View
প্রথম যখন ক্যাম্পাসে আসি তখন খুব খারাপ লাগত.. ছোট ক্যাম্পাস, খুব অল্প স্টুডেন্ট আর কঠিন ক্লাসের শিডিউল খুব বদ্ধ বৃদ্ধ লাগত । ক্লাসমেট দের ও খুব সংকীর্ণমনা মনে হত প্রথম দিকে... কি রকম রোবটের মত ক্লাসে আসছে. ক্লাস করছে চলে যাচ্ছে । কোন ইনজয় করার কিছু নাই...

কিন্তু আমার ভুল ভাঙতে খুব দেরী লাগে নাই।। ২য় বর্ষের উঠার পর( যখন দেখলাম আর কোন উপায় নাই ...) সহসাই ভাল লাগতে শুরু করল । ক্লাসের ফাঁকে আড্ডা, ফুলটাইম ক্লাস( সকাল ৮ টা থেকে লাঞ্চ বিরতি ছাড়া টানা সন্ধ্যা পর্যন্ত ক্লাস , টুকটাক বার্থ ডে সেলিব্রেশন , ঘুরতে যাওয়া.. মাঝে মাঝে এর ওর বাসায় দাওয়াত.. ভালই যাচ্ছিল দিনগুলি.. । বার্থডে এর প্রসঙ্গ যখন আসল তখন একটা গল্প বলেই ফেলি । আমার বান্ধবী দোলা এর বার্থডে । দোলা এর শখ ই ছিল আমাদের খাওয়ানো.

তো দোলা এর বার্থডে সেলিব্রেট হবে রোজ গার্ডেন এ । আমরা বেশ কয়েকজন সেখানে উপস্থিত.. আমি একটু দেরি করেই গিয়েছিলাম । মোটামুটি সব সিট দখল..খুব সুন্দর মুখশ্রী এক মেয়ের পাশে সিট ফাঁকা আছে । কি আর করা ফাঁকা সিট দখল নিলাম.. পাশে অপরিচিত মেয়ে তাই একটু ভাব নেওয়ার চেষ্টা করেছিলাম । হঠাৎ মেয়েটি বলে উঠলো ভাল আছিস নাঈম? আমার তখন ভূত দেখার মত অবস্থা!অপরিচিত মেয়েটির গলাটা খুব চেনা,অনেক শুনেছি.আরে এযে ইফা ! আসলে ইফার চোখ ছাড়া মুখশ্রী আগে যে দেখি নাই! এ নিয়ে অনেক হাসি ঠাট্টা হয়েছে অনেক । ৩য় বর্ষের শুরুর দিকে এসে ছোট ক্যাম্পাসের আসল মজা পাওয়া শুরু করলাম । সবাই সবাইকে চিনে.. সব কিছু গ্রুপের মধ্যে । নতুন ক্যাম্পাস . অনেক কিছু করার সুযোগ আছে..। ক্যাম্পাস টা তখন জীবন হয়ে গেছে । প্রথম বর্ষের সংকীর্ণমনা মনে হওয়া বন্ধু গুলি তখন সবাই আত্মার আত্মীয় হয়ে গেছে । না দেখলে ভাল্লাগে না.. । সব ভাল গেলেও আমাদের ফাইনাল ইয়ার টা খুব একটা ভাল যায় নি । মাত্র ৮ মাসে ১ বছরের কোর্স শেষ করেছে.. । ইউনিভার্সিটি এফিলিয়েশন চেঞ্জ হওয়ায় যত দ্রুত পারছে বের করে দিছে । ফাইনাল এক্সাম এর ১০ দিন আগে এসেসমেন্ট এক্সাম এর মাঝে এক দিনে ২টা এক্সাম দিয়ে একদিন গ্যাপ করে আমাদের Rag ডে করা লাগছিল । যে ক্যাম্পাস আমাকে এত্ত ভাললাগা দিয়েছে সেই ক্যাম্পাস এর জন্য অনেক উদ্যোগ নেয়ার ইচ্ছা ছিল সময়ের জন্য পারিনি ।

বাস প্রায় অফিসের সামনে চলে আসছে । সকাল ৮ টা থেকে অফিস । কোথায় যেনো পড়েছিলাম কেউ যদি সকাল ৮ টার ক্লাস ঠিক ভাবে না করে তার সারাজীবন সকাল ৮ টায় অফিস করতে হয় । চার বছরই সকাল টার ক্লাস মিস গিয়েছে বা পিছনের দরজা থেকে ক্লাসে ঢুকেছি । জানি না কি আছে কপালে..
সুইঁ-সুতা দেয়াল পত্রিকার নতুন কমিটিকে আমি শুভেচ্ছা জানাচ্ছি । সম্পাদক হিসেবে তৌকির তমাল আশা করি তার যোগ্যতার পরিচয় রাখবে ।
আর ৫ ম ব্যাচের সৌজন্যে এই সংখ্যায় আমি ৫ম ব্যাচকে আমার অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি । গ্র্যাজুয়েশন শেষে তাদের সুন্দর ক্যারিয়ার এবং সুন্দর জীবন কামনা করছি ।
ধন্যবাদ সবাইকে ।

আবদুল্লাহ আল নাঈম

আবদুল্লাহ আল নাঈম 
৩য় ব্যাচ 
অফিসার ,গার্মেন্টস ওয়াশিং , ফকির ফ্যাশন লিমিটেড ।




No comments

ক্ষুদ্র চিন্তা

মানুষের মৌলিক চাহিদা ৬টি। খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ও নিরাপত্তা। বস্ত্র অর্থাৎ টেক্সটাইল মানুষের দ্বিতীয় মৌলিক চাহিদা। এই...

Theme images by konradlew. Powered by Blogger.